1. admin@dailyhumanrightsnews24.com : admin :
বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:৫৭ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
নড়াইল সুলতান মেলা উপলক্ষে ষাঁড়ের লড়াই প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়েছে। লোহাগড়ায় গাঁজাসহ ২জন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার। জগন্নাথপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় শিশু সহ ৩ জন আহত জগন্নাথপুরে সাংবাদিক শংকর রায় এর শেষকৃত্য সম্পন্ন, বিভিন্ন মহলের শোক প্রকাশ গোপালগঞ্জ জেলা পুলিশের মানবিক কর্মসূচি বাস্তবায়ন গোপালগঞ্জে নবাগত অতিরিক্ত পুলিশ সুপার উখিংমের যোগদান গোপালগঞ্জের উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী গাজী মাসুদ অনারস মার্কায় টুঙ্গিপাড়াবাসীর কাছে দোয়া ও ভোট ভিক্ষা চান। গোপালগঞ্জ জেলা নির্বাচন কমিশন উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক ঘোষনা করেন। লোহাগড়ায় সরকারী নিয়ম-নীতি না মেনে দিঘলিয়া ইউপি চেয়ারম্যান বিদেশ সফরে। জগন্নাথপুরে ওয়াশ ব্লকের নির্মাণ কাজ উদ্বোধন করলেন কাউন্সিলর কামাল হোসেন

সিরাজগঞ্জে যমুনা থেকে বালু উত্তোলন, বিলীন হচ্ছে বসতভিটা

  • আপডেট সময় : শনিবার, ২০ মে, ২০২৩
  • ২৭ বার পঠিত

স্টাফ রিপোর্টারঃ          সিরাজগঞ্জে যমুনা নদী থেকে অবৈধ বালু উত্তোলনের কারনে নদীতে বিলীন হচ্ছে বসতভিটা ও ফসলী জমি। ভাঙনের মুখে রয়েছে বহু স্থাপনা। বালু উত্তোলন বন্ধ না হলে আসছে বর্ষায় সদর উপজেলার কাওয়াকোলা ইউনিয়ন যমুনা নদীগর্ভে বিলীন হওয়ার আশঙ্কা এলাকাবাসী। জেলা প্রশাসক বরাবর অভিযোগ পত্রে একথা উল্লেখ করা হয়েছে। এবিষয়ে সদর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) এস.এম রকিবুল হাসান বলেছেন, বালু মহালের এরিয়ার বাইরে কেউ বালু উত্তোলন করলে আমরা তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব। প্রয়োজনে ইজারা মহাল বাতিলও হতে পারে।

বালু উত্তোলন বন্ধের দাবীতে জেলা প্রশাসক বরাবর আবেদন করা হয়েছে। গত ১৪ মে সদর উপজেলার ৮নং কাওয়াকোলা ইউনিয়নের দেড় শতাধিক বাসিন্দা স্বাক্ষরিত একটি পত্রে এই আবেদন করা হয়। বালু উত্তোলনের কারনে নদীর পাড় ভেঙে নদীতে বিলীন হচ্ছে। এছাড়া এই অঞ্চলের আবাদি জমি, বসতবাড়ি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মসজিদ-মাদ্রাসা, কমিউনিটি ক্লিনিক, মুজিবকেল্লা, রাস্তাঘাট নদীগর্ভে বিলীন হতে চলেছে বলে আবেদন পত্রে উল্লেখ করা হয়েছে।

যমুনা নদীর সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার কাওয়াকোলা এলাকা  থেকে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলনে কারনে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে যমুনা পাড়ের মানুষ। বালু উত্তোলন বন্ধ করা না হলে চলতি বছরে বর্ষায় নদীর স্রোতে  কাওয়াকোলা ইউনিয়নের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বসতবাড়ি, ফসলী জমিসহ বিভিন্ন স্থাপনা নদীতে বিলীন হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। বালু উত্তোলন বন্ধে স্থানীয় এলাকাবাসী ইতিমধ্যে একাধিকবার মানববন্ধন করেছেন। তারপরও বালু উত্তোলন বন্ধ হয়নি। তবে জেলা প্রশাসক বলেছেন ইজারাকৃত জায়গার বাইরে এসে বালু উত্তোলন করলে তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার কাওয়াকোলা ইউনিয়ন যমুনা নদী বেষ্টিত এলাকা। প্রতিবছরই নদীতে বিলীন হয়ে যাচ্ছে ঘরবাড়ি, ফসলী জমি। নদী ভাঙ্গনে ছোট হয়ে আসছে কাওয়াকোলা ইউনিয়ন। নদীতে ঘরবাড়ি ফসলী জমি হারিয়ে এলাকার অনেক পরিবার এখন নি:শ্ব। আবার নদীতে বিলীন হয়ে যাওয়া জমিতে চর জেগে ওঠায় অনেকেই চীনাবাদাম, বোরো ধান, তিল, গমসহ বিভিন্ন রবি ফসল আবাদ করে পরিবার নিয়ে জীবিকা নির্বাহ করছেন। আবার অনেকে নদীভাঙনের কবলে পড়ে সর্বস্বান্ত হয়েছেন। নদীতীরবর্তী মানুষের জমিতে চর জেগে ওঠায় কিছুটা হলেও তারা ওই জমি আবাদ করে রোজগার করছেন। কিন্তু বালু উত্তোলনের কারনে ভেঙে যাচ্ছে এসব ফসলী জমি।

এলাকাবাসী জানায়, গত ঈদুল ফিতরের আগে সদর উপজেলার জিয়ারপাড়া মৌজায় বালু মহাল ইজারা দেয় জেলা প্রশাসক। কিন্তু ইজারাদারের লোকজন জিয়ারপাড়া মৌজা থেকে বালু উত্তোলন না করে নদীর তীরবর্তী অঞ্চল কাওয়াকোলা ও দোগাছী মৌজা গ্রাম থেকে ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন করছেন। অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের কারনে বর্ষায় যমুনার তীব্র স্রোতে  কাওয়াকোলা ইউনিয়নের আবাদি জমি, বসতবাড়ি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মসজিদ-মাদ্রাসা, কমিউনিটি ক্লিনিক, মুজিবকেল্লা, রাস্তাঘাট নদীগর্ভে বিলীন হওয়ার আশঙ্কা  রয়েছে। তাই অতিদ্রুত অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধের দাবীতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

স্থানীয় শাহজামাল বলেন, আমার ধানের প্রজেক্ট ছিলো। সব নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। গত বছর বন্যা বসত বাড়ি ভাঙ্গনের কারনে সরিয়ে নিয়েছি। এঅবস্থায় নদী থেকে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। এতে বর্ষা মৌসুমে এলাকা ভেঙ্গে নদীতে চলে যাবে। মানুষ গৃহহারা হয়ে যাবে। নদীতে ভেঙ্গ যাবে ফসলী জমি। গত বছরও ভূট্রার আবাদ করেছি। আগামী বছর করতে পারবো কি না জানি না। যে ভাবে হোক বালু উত্তোলন বন্ধ করতে হবে।

সার্জেন্ট (অব.) এস.এম রফিকুল ইসলাম বলেন, জেলা প্রশাসক জিয়ারপাড়া বালু মহাল ইজারা  দিয়েছে। সেখান থেকে বালু উত্তোলন করা কথা। কিন্তু ঠিকাদারের লোকজন ইজারাকৃত বালু মহালের বাইরে এসে নদী থেকে বালু উত্তোলন করছে। এতে বর্ষা মৌসুমে নদীতে ব্যাপক ভাঙন দেখা দেবে। মানুষের ঘরবাড়ি, ফসলী জমি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নদীতে বিলীন হয়ে যাবে। তাই প্রশাসনের কাছে বিনীত অনুরোধ কাওয়াকোলা এলাকা থেবে বালু উত্তোল বন্ধে জরূরী পদক্ষেপ নিতে হবে।

সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি,)  এস.এম রকিবুল হাসান বলেন, বালু মহালের এরিয়ার বাইরে কেউ বালু উত্তোলন করলে আমরা তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব। এক্ষেত্রে জেলা প্রশাসক স্যার শতভাগ ষ্টিক। খবর পেলে আমরা অভিযান করে সাথে সাথে জরিমানা করবো। প্রয়োজনে ইজারা মহাল বাতিলও হতে পারে।

সংবাদটি শেয়ার করুন :
এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৮ দৈনিক মানবাধিকার সংবাদ
Theme Customized By Shakil IT Park