1. admin@dailyhumanrightsnews24.com : admin :
মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪, ০৬:৫১ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
ধর্মপাশায় ঐতিহাসিক ৭মার্চ উদযাপন উপলক্ষে প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত  ধর্মপাশায় বিনামুল্যে ৪০জন কৃষকের মধ্যে গাছের চারা,বীজ,সার বিতরণ লোহাগড়ায় প্রজেক্টের চুরির মালামাল ও ট্রাকসহ উজ্জ্বল নামে ১ জন আটক। পিকনিকের যাত্রীবাহী বাসের চাকা ফেটে শিশুসহ আহত অর্ধশতাধিক গোপালগঞ্জ কোটালীপাড়ায় সরকারি জমিতে  আলিশান বাড়ি নির্মাণের অভিযোগ।  জগন্নাথপুর-শিবগঞ্জ- বেগমপুর সড়কে কালভার্টের এ্যাপ্রোচে ধ্বস, সরাসরি যানবাহন চলাচল বন্ধ  ইবির বঙ্গবন্ধু পরিষদ শিক্ষক ইউনিটের সভাপতি ড. মাহবুবর, সম্পাদক ড. শেলিনা  ইবির ঢাকা ছাত্রকল্যাণের নেতৃত্বে সাইফ-সালমান গোপালগঞ্জে  গাছে গাছে আমের মুকুল   জগন্নাথপুরে রাস্তার ঢালাই কাজ পরিদর্শন করেছেন মেয়র আক্তারুজ্জামান

তাড়াইলে বিদ্যালয়ের প্রবেশ দ্বারে ময়লার স্তূপ, নাকাল শিক্ষার্থীরা

  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ১৫ জুন, ২০২৩
  • ৫৮ বার পঠিত

রুহুল আমিন, তাড়াইল (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি:

কিশোরগঞ্জের তাড়াইল উপজেলার ঐতিহ্যবাহী তাড়াইল সরকারি পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয়টির প্রবেশ দ্বার ঘেঁষেই গড়ে উঠেছে একটি ময়লা ফেলার আঁস্তাকুড়। এতে ফেলা হচ্ছে নিকটবর্তী বাজারের সব ময়লা-আবর্জনা। উৎকট গন্ধের কারণে ক্লাসে বসতে পারে না শিক্ষার্থীরা। অস্বস্তিকর ও নোংরা পরিবেশের মধ্যেই ক্লাস করতে হয় তাদের। কখনো কখনো শিক্ষার্থীরা অসুস্থ হয়ে পড়ে। এ অবস্থায় পাঠদান চালিয়ে যাওয়া কঠিন হয়ে পড়েছে বলে জানিয়েছেন বিদ্যালয়ের শিক্ষকেরা।

তাড়াইল উপজেলা সদর বাজারের পূূর্ব পাশেই বিদ্যালয়টির অবস্থান। নাম তাড়াইল সরকারি  পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয়। ১৯৪৫ সালে প্রতিষ্ঠিত এই বিদ্যালয়ের বর্তমান শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৬০০। ভালো পড়াশোনার দিক দিয়ে বিদ্যালয়টির সুনাম আছে এলাকায়। দিন দিন বাড়ছে শিক্ষার্থীর সংখ্যাও।

তাড়াইল সরকারি পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, কয়েক বছর ধরে একই স্থানে ময়লা ফেলা হলেও পরিষ্কার করা বা বর্জ্য অপসারণের কোনো উদ্যোগ নেয়নি বাজার কমিটি ও স্থানীয় প্রশাসন। প্রায় সময় দুর্গন্ধ এত বেশি তীব্র হয় যে বিদ্যালয় ভবনে বসে থাকাও দায় হয়ে যায়। শ্রেণিকক্ষের দরজা-জানালা বন্ধ করেও দুর্গন্ধ এড়ানো যায় না।

বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বলেন, বাড়ি থেকে বিদ্যালয়ে আসা-যাওয়ার সময় দুর্গন্ধে খুব কষ্ট হয়। বিদ্যালয়ের ভিতরে ছোট একটা মাঠ থাকলেও দুর্গন্ধের কারণে তারা খেলাধুলা করতে পারেন না। শ্রেণিকক্ষের দরজা-জানালা বন্ধ করে ক্লাস করতে হয়। বিদ্যালয়ের শিক্ষকগণ বলেন, দুর্গন্ধের কারণে বাচ্চারা প্রায়ই অসুস্থ হয়ে পড়ে। এদিকটায় কেউ কর্ণপাত করছেন না। শিক্ষার্থীদের নিয়ে দুর্গন্ধের মধ্যে ক্লাস নিতে খুবই কষ্ট হয়।

বিদ্যালয়টির ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আব্দুল কাদির বলেন, বিদ্যালয়ের প্রবেশ দ্বারেই  ময়লার স্তূপ হওয়ায় দুর্গন্ধে শিক্ষার্থীরা এখান দিয়ে ঠিকমতো চলাচল করতে পারে না ও মাঠে খেলাধুলা করতে পারে না। দুর্গন্ধের কারণে শ্রেণিকক্ষে পাঠদান করাও মুশকিল হয়ে পড়েছে। দরজা-জানালা বন্ধ করে পাঠদান করতে হয়। ময়লার স্তূপ সরিয়ে নেওয়ার জন্য অনেক অনুরোধ করা হয়েছে। কিন্তু কেউ কথা শোনে না।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লুবনা শারমিন দৈনিক আমাদের নতুন সময়কে বলেন, বিদ্যালয়ের পাশে ময়লা-আবর্জনা ফেলা দুঃখজনক। বাজার ব্যবসায়ীরা যাতে ওই স্থানে আর কোনো বর্জ্য ফেলতে না পারে তার ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন :
এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৮ দৈনিক মানবাধিকার সংবাদ
Theme Customized By Shakil IT Park