1. admin@dailyhumanrightsnews24.com : admin :
শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৭:৩৮ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
কলকলিয়ায় বিএনপি ও অঙ্গ সহযোগী সংগঠন এর ঈদ পূর্ণমিলনী অনুষ্ঠিত ইবির নতুন ছাত্র উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. বাকী বিল্লাহ বিকুল পঞ্চগড়ে ঘরে ঢুকে, প্রেমিকাকে গলা কেটে হত্যা শান্তিপূর্ণ পরিবেশে জগন্নাথপুরে ঈদুল ফিতরের জামাত অনুষ্ঠিত ইনায়াহ ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের পক্ষ থেকে হত-দরিদ্র ও বেদে জনগোষ্ঠীর মানুষের মধ্যে ইফতার বিতরণ ধর্মপাশা উপজেলা বাসিকে ঈদের অগ্রিম শুভেচ্ছা জানিয়েছেন চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী মোঃ আবুল বাশার নারীর টানে বাড়ি ফেরা মানুষের ঢল নড়াইলের পল্লীতে ১ কিশোরীকে ধর্ষণ ও নির্যাতনের অভিযোগ বেসামরিক সেনা কর্মচারীর বিরুদ্ধে। ঈদের দিন সেমাই-চেনি খাবে এটা ভেবেই খুশি তারা গোপালগঞ্জে ঈদুল ফিতরের নামাজের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হবে

তিস্তার রুপালি বালু চরের সবুজের ঢেউয়ে দুলছে কৃষকের স্বপ্ন

  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ২ জানুয়ারি, ২০২৪
  • ৫৩ বার পঠিত

 

হাসানুজ্জামান সিদ্দিকী হাসান  নীলফামারী প্রতিনিধি

প্রমত্তা তিস্তার ধু-ধু বালুচরে এখন সবুজের সমারোহ। যতদুর চোখ যায় শুধু সবুজ আর সবুজ। রুপালী  বালু চর এখন সবুজে ঢেকে গেছে। এই শীত মৌসুমে  চাষাবাদ হচ্ছে ভুট্টা, বাদাম, পেঁয়াজ, মরিচ, মিষ্টি কুমড়া, তিল, কাউন, শাক সবজি সহ বিভিন্ন প্রকার রবিশস্য। এসব রবিশস্য চাষে রঙিন স্বপ্ন দেখছেন তিস্তা পাড়ের কৃষকরা। প্রায় প্রতিটি ফসলের ভালো ফলন হওয়ায় বিগত দিনের ক্ষতি পুষিয়ে নেয়ার চেষ্টায় ব্যস্ত কৃষকরা।

নীলফামারী জেলার জলঢাকা উপজেলার বিভিন্ন চরাঞ্চলগুলো ঘুরে একই দৃশ্য দেখা গেছে।

সরেজমিনে এসব চরাঞ্চল ঘুরে দেখা গেছে, তিস্তা নদীর বুক চিরে জেগে ওঠা হাজার হাজার হেক্টর জমিতে বিভিন্ন জাতের রবি শস্য চাষ করা হয়েছে। কোথাও এতটুকু জমি পতিত নেই। প্রতিবছর বর্ষা মৌসুমে উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলের সাথে নুড়ি পাথর, কাকনযুক্ত বালি ও মাটি বয়ে আসায় দ্রুত তিস্তার তলদেশ ভরাট হয়ে গিয়ে অসংখ্য চর জেগে উঠেছে। বালুর সাথে পলি মাটির স্তর পড়ে এসব চরকে আবাদী করে তুলছে। পলি মিশ্রিত এসব চরে ভুট্টা, কাউন, মিষ্টি কুমড়া, পেঁয়াজ, রসুন, মরিচ, বরবটি, মিষ্টি আলু, বাদাম, করলা, বেগুন, পুঁই শাক, লাউ শাকসহ বিভিন্ন রবিশস্য চাষের ধুম পড়ে গেছে। বর্ষা মৌসুমের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে এসব চরে রবিশস্য চাষে কোমর বেঁধে মাঠে নেমেছেন চরাঞ্চলের কৃষকরা। আর তাই যতদুর চোখ যায় এসব চরাঞ্চল শুধু সবুজ আর সবুজ। তিস্তা নদীর বিভিন্ন চর এলাকার কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে জনা গেছে, গত বর্ষা মৌসুমে তিস্তার চরে আমন ধান চাষ হয়নি। আমনের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে এলাকার কৃষকেরা তিস্তার চরে বিভিন্ন ধরনের রবিশস্য চাষ করেছেন ।

কৃষকরা জানান, ধান, গম চাষ করলে যে লাভ হয়, এর চেয়ে দ্বিগুণ লাভ হয় রবিশস্যে। বিশেষ করে ভুট্টা চাষে বেশ লাভবান হচ্ছেন তারা। প্রতি বিঘায় ৪০ থেকে ৪৫ মণ পর্যন্ত ভুট্টা হয়। যার মূল্য প্রায় ৩০ থেকে ৩২ হাজার টাকা। আর ব্যয় হয় বিঘা প্রতি ১০-১২ হাজার টাকা। ভুট্টা ঘরে তোলার সময় পর্যন্ত আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে সব ভুট্টাচাষি বেশ লাভবান হবেন।

তারা আরও জানান, আগে তিস্তার চরাঞ্চলগুলো পতিত ছিল। অন্য ফসলের আশানুরূপ ফলন না হওয়ায় এসব জমিতে ফসল ফলানো হয়নি। এখন আধুনিক পদ্ধতিতে এসব চরে নানামুখী রবিশস্য চাষ করা হচ্ছে। এতে ভালো ফলন এবং দামও পাওয়া যাচ্ছে।

উপজেলার তিস্তার চরাঞ্চল গুলোতে এ বছর রবিশস্যের ব্যাপক চাষ হয়েছে। পরিবেশ অনুকূলে থাকায় এই উপজেলার প্রতিটি চরাঞ্চলেও বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে।জলঢাকা উপজেলার ১১টি ইউনিয়নের মধ্যে ৪টি ইউনিয়ন নদী বিধ্বস্ত। এই ৪টি ইউনিয়নের চরাঞ্চলের কৃষকরা তাদের জমা-জমিতে বিভিন্ন প্রকার রবি শস্যের চাষ করেছেন। রবি শস্যকে ঘিরে নদী গর্ভে নিঃস্ব হওয়া হাজার হাজার মানুষ এখন নতুন করে স্বপ্ন দেখছেন ।

উপজেলা কৃষি অফিসার জানিয়েছে, তিস্তার করাল গ্রাসে হাজার হাজার মানুষ আবাদী জমি, বসতবাড়ী হারিয়ে নিঃস্ব হয়েছে। এই নিঃস্ব পরিবার গুলো বাঁচার তাগিদে তাদের বংশীয় ঐতিহ্য ত্যাগ করে রিকসা, ভ্যান চালনা ছাড়াও দেশের বিভিন্ন এলাকায় গিয়ে বিভিন্নভাবে শ্রম বিক্রি করে চলেছে। তিস্তার নাব্যতা হ্রাস পাওয়ায় জেগে উঠা ছোট বড় চরগুলো তাদের নতুন করে বাঁচার স্বপ্ন দেখাচ্ছে। এসব চরে ্অনেকেই এখন রবি শস্য চাষ করে জীবিকার নতুন দ্বার উন্মোচন করেছেন। এক্ষেত্রে এসব চাষীদের বিনামুল্যে সার-বীজ দিয়ে সহায়তাও করা হয়েছে। গত বন্যায় আমন ক্ষেত নষ্ট হওয়ায় যে সমস্ত জমি পতিত ছিল সেগুলোতে আগাম জাতের রবিশস্য চাষ করতে কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করা হয়েছে। কৃষকরাও উদ্বুদ্ধ হয়ে আগাম জাতের বিভিন্স্য চাষ করে বেশ লাভবান হয়েছেন।

কৃষি বিভাগ আরও জানিয়েছে, তিস্তার বুক চিরে জেগে ওঠা চরগুলোতে পলি মিশ্রিত মাটি থাকায় এগুলোতে ভুট্টা, কাউন, মিষ্টি কুমড়া, বাদাম, মিষ্টি আলুর ফলন বেশ ভালো হওয়ায় কৃষকরা এসবের প্রতি আগ্রহী হয়ে উঠেছেন। কম খরচে অধিক ফলন পাওয়ায় এবং লাভজনক হওয়ায় ভুট্টা আবাদের দিকেই বেশি ঝুঁকছেন কৃষকরা। ভুট্টার পর এসব জমিতে তোষা পাট লাগানো হচ্ছে

সংবাদটি শেয়ার করুন :
এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৮ দৈনিক মানবাধিকার সংবাদ
Theme Customized By Shakil IT Park