1. admin@dailyhumanrightsnews24.com : admin :
শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ০৫:২৩ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
এলাকাবাসীর অর্থায়নে জগন্নাথপুর -কলকলিয়া – তেলিকোনা সড়কের সংস্কারকাজ চলছে  এলাকাবাসীর অর্থায়নে জগন্নাথপুর -কলকলিয়া – তেলিকোনা সড়কের সংস্কারকাজ চলছে  পাগলা-জগন্নাথপুর আঞ্চলিক  মহাসড়কে গাড়ী চাপায় দুই শিশু গুরুতর আহত কোটা আন্দোলন  রক্তাক্ত ঢাবি  , আহত সাংবাদিকসহ আরো অনেকেই ? কানামাছি শিশুসাহিত্য পুরস্কার ২০২৪ পাচ্ছেন সিলেটের সিরাজ উদ্দিন শিরুল সহ ৫ কৃতিমান লেখক মৌলভীবাজারের নিমারাই গ্রামে রাস্তার বেহাল দশায় হাজারো মানুষের ভোগান্তি জগন্নাথপুরে আইনশৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভা জগন্নাথপুরে মারামারি মামলার ৩ আসামী গ্রেপ্তার  কোটা বিরোধী আন্দোলনের নামে মুক্তিযোদ্ধা  ও স্বাধীন দেশ নিয়ে কটুক্তিকারীদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি দাবি করছি  ………কবি আব্দুল্লাহ আল মামুন লাভলু জুড়িতে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ১৪০ প্যাকেট খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেছে উপজেলা জামায়াত ইসলামী

জগন্নাথপুরে ১৮ মাসের কাজ শেষ হয়নি ৩৬ মাসে, বিপাকে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ 

  • আপডেট সময় : বুধবার, ১০ জানুয়ারি, ২০২৪
  • ৫৭ বার পঠিত
হুমায়ূন কবীর ফরীদি, স্টাফ রিপোর্টারঃ
জগন্নাথপুরে একটি বিদ্যালয় ভবনের কাজ ১৮ মাসের মধ্যে সম্পন্ন হওয়ার কথা থাকলেও ৩৬ মাস অতিবাহিত হওয়ার পরও ভবনের কাজ সম্পন্ন হয়নি। অথচ ঠিকাদার কাজ বন্ধ করে চলে গেছেন। যার ফলশ্রুতিতে স্কুল কর্তৃপক্ষ মহাবিপাকে পড়েছেন।
সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায় ও জানাযায়, সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলাধীন কলকলিয়া ইউনিয়ন এর ঐতিহ্যবাহী প্রাক্তন বিদ্যাপীঠ আটপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়। এই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীর সংখ্যা সাত শতাধিক। এবং এই বিদ্যালয়টি এলাকার এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা কেন্দ্র। শিক্ষার্থী অনুপাতে  এই প্রতিষ্ঠানে শ্রেণী কক্ষ কম থাকায় বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ দীর্ঘদিন ধরে সমস্যায় ভূগছিলেন। এমতাবস্থায় এলাকাবাসীর দাবীর পরিপেক্ষিতে স্থানীয় সংসদ সদস্য পরিকল্পনা মন্ত্রী আলহাজ্ব এম এ মান্নান এর আন্তরিক প্রচেষ্টায় এই শিক্ষাঙ্গন ক্যাম্পাসে ১২ কক্ষের চারতলা ভবনের কাজের কার্যাদেশ দেওয়া হয় ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারী মাসে। কার্যাদেশ অনুযায়ী সুনামগঞ্জ শহরের বিহারী পয়েন্টস্থ ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মোস্তফা এন্টারপ্রাইজ এই বছরের জুন মাসে ভবন নির্মাণ এর কাজও শুরু করে। কিন্তু কাজ ৫ শত ৪০ দিনে অর্থাৎ ১৮ মাসে সম্পন্ন করার কথা থাকলেও  ৩৬ মাসে কাজটি শেষ করতে পারেনি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। ভবনের ৭০/৮০ ভাগ কাজ করে আড়াই কোটি টাকা বিল উত্তোলন করেছে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। এর পর থেকে দেখা মিলছেনা ঠিকাদার এর। নির্মাণাধীন ভবনের দেওয়ালে শ্যাওলা লেগে আছে। ভবনটি দেখততে মনে হয় পরিত্যক্ত। এদিকে বিদ্যালয় ভবনের কাজ চলমান থাকায় স্কুল কর্তৃপক্ষ পুরাতন ব্যবহার অনুপযোগী অন্য কক্ষ গুলোর সংস্কার কাজ করাননি। এমতাবস্থায় শিক্ষার্থীদের পাঠদান কীভাবে চলবে। এবং আগামী এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা কীভাবে নেওয়া হবে এই দুঃশ্চিন্তায় পড়েছেন বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করার জন্য সংশ্লিষ্ট বিভাগের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করছেন অভিভাবক, শিক্ষক ও বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সহ এলাকার সচেতন মহল।
এ ব্যাপারে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির অভিভাবক সদস্য মোঃ ফয়জুল হক বলেন, স্থানীয় সংসদ সদস্য পরিকল্পনা মন্ত্রী মহোদয় এর বদান্যতায় আমরা বিদ্যালয় ভবনের বরাদ্দ পেলেও ভবনটির কাজ শেষ হবে কি-না এ নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে। ঠিকাদারের লোকজন এখন আর কাজের গোড়ায় আসছে না। ঠিকাদার এর কিছু মালামাল যত্রতত্র পড়ে নষ্ট হওয়ার পাশা-পাশি বিদ্যালয়ের পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে।
এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, পরিকল্পনা মন্ত্রী এম এ মান্নান সহ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সুদৃষ্টি কামনা করছি।
এবিষয়ে আটপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক মাওলানা মোঃ কবির হোসেন বলেন, প্রায় দুই বছর হয় বিদয়ালয়  ভবনের কাজ বন্ধ থাকায় যেসব কাজ হয়েছিল, সে গুলোও নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। মালামাল নষ্ট হচ্ছে। দেওয়ালে শ্যাওলা লেগেছে। এই অবস্থায় নতুন বছরের পাঠদানে ব্যাঘাত ঘটছে। এবং এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার শিক্ষার্থীদের কোথায় বসিয়ে পরীক্ষা নেওয়া হবে এচিন্তা এখন মাথায় ঘুরপাক খাচ্ছে।
এব্যাপারে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এইচ এম আজমল  বলেন, বিদ্যালয়ের এই ভবন নির্মাণ এর অবস্থা জানিয়ে এবং শ্রেণী কক্ষের সমস্যার কথা উল্লেখ করে কয়েক দফায় শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর এর নির্বাহী প্রকৌশলীর নিকট আবেদন করেছি। কিন্তু কোনো ফল হয়নি। এখন আমরা নিরূপায় হয়ে আছি।
এবিষয়ে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব মোঃ সিরাজুল ইসলাম বলেন, এই বিষয়টি নিয়ে জগন্নাথপুর উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ও জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সহ বিভিন্ন কর্তৃপক্ষের নিকট ধর্না দিয়েছি। কোনো ফলাফল হয়নি। এখন ঠিকাদার ও দায়িত্বশীল প্রকৌশলীকে ফোন দিলেও তাঁরা গুরুত্ব দিচ্ছেন না।
এবিষয়ে জানতে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর এর জগন্নাথপুর এর দায়িত্বপ্রাপ্ত সহকারী প্রকৌশলী শুভ্র দেবনাথ মুঠোফোনে আলাপকালে বলেন, এ ব্যাপারে আমি সবকিছু বলতে পারছিনা। নির্বাহী প্রকৌশলী কামরুজ্জামান মহোদয় এর সাথে আলাপ করলে বিস্তারিত জানাযাবে।
এ ব্যাপারে সুনামগঞ্জ শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর এর নির্বাহী প্রকৌশলী (চ:দা:) মোঃ কামরুজ্জামান মুঠোফোনে আলাপকালে আজকের বসুন্ধরা পত্রিকাকে বলেন, নানা অজুহাত দেখিয়ে ঠিকাদার কাজ বন্ধ করে রেখেছে। আমরা তাকে চাপ দিয়েছি। আমরা তাকে বাতিল করব বলে বলার পর বলেছে, চলতি জানুয়ারী মাসের ১৫ তারিখে মধ্যে কাজ শুরু করে দ্রুত সম্পন্ন করবে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরও বলেন, ১৫ জানুয়ারীর মধ্যে কাজ শুরু না করলে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মোস্তফা এন্টারপ্রাইজ এর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
এ ব্যাপারে জানতে ঠিকাদারী প্রতিষ্টান মোস্তফা এন্টারপ্রাইজ এর  মোস্তফা মিয়ার মুঠোফোনে ফোন দিলে সংযোগ বন্ধ থাকায় তাঁর বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।
সংবাদটি শেয়ার করুন :
এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৮ দৈনিক মানবাধিকার সংবাদ
Theme Customized By Shakil IT Park