1. admin@dailyhumanrightsnews24.com : admin :
শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ০৮:০৯ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
র‌্যাব-৫ হাতে চারঘাটে মাদক ও অস্ত্র সহ ব্যবসায়ী গ্রেফতার বারহাট্টা উপজেলা নির্বাচনে ৪ প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত মানুষকে সর্বজনীন পেনশন স্কীমের আওতায় আনার লক্ষে জগন্নাথপুরে মতবিনিময় সভা শমশেরনগর হাসপাতালে যুক্ত হলেন ইংল্যান্ড প্রবাসী তিন সফল নারী শমশেরনগর হাসপাতালে যুক্ত হলেন ইংল্যান্ড প্রবাসী তিন সফল নারী নেত্রকোনার ৩ উপজেলাতেই নতুনরা নির্বাচিত রানীগঞ্জ -হলিকোনা সড়কের করুন দশা, জনগণের ভোগান্তি জগন্নাথপুরে প্রভাষক মাওলানা মোঃ তরিকুল ইসলাম এর যুক্তরাজ্য গমন উপলক্ষে বিদায়ী সংবর্ধনা জমে উঠেছে লংগদু উপজেলা পরিষদ নির্বাচন, প্রচারনায় ব্যস্ত প্রার্থীরা নড়াইলে পূর্বশত্রুতার জেরে নিলয় কে হত্যা,প্রধান আসামি সাকিল গ্রেফতার।

গোপালগঞ্জ সদর উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারে সন্তান রফিকুল ইসলাম ( মিটু )।

  • আপডেট সময় : সোমবার, ১৫ এপ্রিল, ২০২৪
  • ৩২ বার পঠিত

মোঃ শিহাব উদ্দিন গোপালগঞ্জ

আসছে ৮ই মে ২০২৪ইং তারিখে উপজেলা নির্বাচনে গোপালগঞ্জ সদর উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসাবে টাকা জমা দিলেন গোপালগঞ্জ জেলার সদর উপজেলার লতিফপুর ইউনিয়নের শহীদ বীর মুক্তিযোদ্ধা এ.হাই শেখ এর পুত্র আওয়ামী পরিবারের শেখ মোঃ রফিকুল ইসলাম মিটু।
গোপালগঞ্জবাসীর কাছে দৃশ্যমান যে, ১৯৭১ সালে মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর আহ্বানে সাড়া দিয়ে তার পরিবারের সদস্যরা স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশগ্রহন করেন এবং প্রত্যেকেই সম্মুখ যুদ্ধে শহীদ হন। তাদের মধ্যে তার পিতা শহীদ বীর মুক্তিযোদ্ধা এ. হাই শেখ , আপন দুই চাচা শহীদ আব্দুল লতিফ , শহীদ আব্দুল আসাদ সহ আপন চাচাতো ভাই শহীদ মনি মিয়া, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাদের পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা প্রকাশ করেন এবং তার চাচা শহীদ আব্দুল লতিফের নামে ৮নং লতিফপুর ইউনিয়ন পরিষদের নামকরন করেন।
তিনি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ ধারন করে ১৯৭৮ সালে গোপালগঞ্জ মহাকুমা ছাত্রলীগের কার্যনির্বাহী সদস্য হিসেবে রাজনৈতিক জীবন শুরু করেছিলেন, ১৯৮০ সালে গোপালগঞ্জ মহাকুমা আওয়ামী যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য, ১৯৯৭ থেকে ২০০১ গোপালগঞ্জ সদর উপজেলা কৃষকলীগের সাধারন সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন, ২০০৭ থেকে ২০১৫ সাল পর্য২ন্ত সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন , ২০১৫ সালের ডিসেম্বর থেকে তিনি সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক হিসেবে ৭ বছর দায়িত্ব পালন সহ বর্তমানে তিনি গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের শিল্প ও বানিজ্য বিষয়ক সম্পাদক হিসেবে দায়িত্বরত আছেন। তিনি ছাত্র জীবন থেকেই বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বুকে ধারন করে অদ্যবধি রাজনৈতিক সকল কর্মকান্ডে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহন করেছেন ও তার উপর অর্পিত সকল দায়িত্ব সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে পালন করে এসেছেন বলে জানা যায়।
এছাড়াও তিনি দলীয় ভাবে দলের দূর সময়ে দলের সকল কর্মকান্ডের সাথে সক্রিয় ভাবে জড়িত ছিলেন, তার মধ্যে ২০০৭ ইং সালের ১/১১ এর সময় সেনা সমর্থীত ও তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সকল অপকর্মের বিরুদ্ধে দলীয় সিদ্ধান্ত মোতাবেক সকল কর্মকান্ডে যোগদান করেন এবং প্রিয় নেত্রীর মুক্তির দাবীতে গোপালগঞ্জের দলীয় সকল কর্মসূচী বাস্তবায়ন এর জন্য রাজপথে থেকেছেন। ২০০১-২০০৫ ইং সাল পর্যন্ত জামাত-বিএনপির রোশানলের স্বীকার হয়ে তাদের গুন্ডা বাহিনী ও পেটুয়া দোষর পুলিশ বাহিনী কর্তৃক শারিরীকভাবে লাঞ্চিত হন তিনি এবং তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় একাধিক মামলা হামলার স্বীকার হয়েছিলেন তিনি।
২০০৯ ইং সালে ৯ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জনমত গঠনের জন্য সকল প্রকার সভা সমাবেশ ও জামাত-বিএনপির প্রতিহিংসা মূলক রাজনীতি ও জ্বালাও পোড়াওকে প্রতিহত করে দলের পক্ষে ভোট সংগ্রহের জন্য সকল প্রকার চেষ্টা করেছিলেন তিনি। ২০১৪ ইং সালের ৫ জানুয়ারীর নির্বাচনের পূর্ববর্তী ও পরবর্তীতে জামাত বিএনপির সকল প্রকার জ্বালাও পোড়াও ও আগুন সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সচেতনতা মুলক প্রচার ও প্রতিরোধ ব্যবস্থা গড়ে তুলতে রাজপথে সকল সংগ্রামে অংশগ্রহন করে দলের ভাবমূর্তি অক্ষন্ন রোখার চেষ্টা করেছেন তিনি।
২০১৮ ইং সালের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলের সিদ্ধান্ত মোতাবেক সকল কর্মকান্ড সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে পালন করে ভোটার উপস্থিত করার জন্য ও বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ সরকারের সকল উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড সর্ব মহলে তুলে ধরার চেষ্টা করেছিলেন তিনি।
রাজনীতির বাইরে সামাজিক ভাবে গোপালগঞ্জ বাসীর কছে সু-পরিচিত সে। তিনি ২০১৮ ইং সাল থেকে অদ্য পর্যন্ত গোপালগঞ্জ এস. এম. মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করে বিদ্যালয়ের উন্নত শিক্ষা পরিবেশ নিশ্চিত করতে চেষ্টা করে অসছেন।
১০ই মার্চ ২০২১ ইং তারিখে গোপালগঞ্জ রেড ক্রিসেন্ট ইউনিটে সরাসরি নির্বাচনের মাধ্যমে বিপু ভোটে কার্যনির্বাহী সদস্য নির্বাচিত হন তিনি। ২০২২ ইং সালে “ প্রজন্ম ২১ (মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের সন্তান)” গোপালগঞ্জ জেলা শাখার আহবায়ক হিসাবে দায়িত্ব পালন করে অসছেন তিনি ।
এ ব্যপারে গোপালঞ্জ সদর উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী শেখ মোঃ রফিকুল ইসলাম মিটুর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি শহীদ বীর মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তান আমার পরিবারের বাবা সহ ৪ জনকে ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময়ে হারিয়েছি। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে সাড়া দিয়ে আমার বাবা সহ পরিবারের লোকজন ঘরে বসে না থেকে দেশ স্বাধীন করার লক্ষে যুদ্ধে গিয়ে শহীদ হয়েছেন। দেশের জন্য আমি আমার বাবা-চাচা ও চাচাতো ভাই হরিয়েছি। আজ আমি একজন শহীদ বীর মুক্তি যোদ্ধার সন্তান হিসাবে গোপালগঞ্জ জেলা সদর উপজেলার সকল মুক্তিযোদ্ধা পরিবার ও আওয়ামী পরিবার সহ গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার সকল সাধারন মানুষের কাছে দোয়া ও আশীর্বাদ কামনা করছি

সংবাদটি শেয়ার করুন :
এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৮ দৈনিক মানবাধিকার সংবাদ
Theme Customized By Shakil IT Park